সাম্প্রতিক আপডেটঃ
Home > রোযা ও রমযান সংশ্লিষ্ট > শাওয়াল মাসের ছয় রোজা

শাওয়াল মাসের ছয় রোজা

আল্লামা সাইয়্যেদ জালালুদ্দীন আল আযহারী

মাহে রমজানের পরবর্তী চন্দ্র মাস মাহে শাওয়াল। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শাওয়াল মাসে ছয়টি রোজা রাখার প্রতি উম্মতকে উদ্বুদ্ধ করেছেন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, “যে ব্যক্তি রমজানের রোজা রাখবে অতপর শাওয়ালে ছয়টি রোজা পালন করবে সে যেন পুরো বছর রোজা রাখল৷ [মুসলিম ১১৬৪]

উপরোক্ত হাদিস প্রসঙ্গে আন নাসাঈ তাঁর ‘সুবুল উস সালাম’ গ্রন্থে মন্তব্য করেছেন, যদি রমজানের ৩০টি রোজার সঙ্গে শাওয়ালের ছয়টি রোজা যুক্ত হয়, তাহলে মোট রোজার সংখ্যা হয় ৩৬টি। শরিয়া অনুযায়ী, প্রতিটি পূণ্যের জন্য ১০ গুণ পুরস্কারের কথা উল্লেখ রয়েছে। তাহলে ৩৬টি রোজা ১০ গুণ পুরস্কারে পরিণত করলে তা ৩৬০টি রোজার সমতুল্য হবে। অর্থাৎ সারা বছরের রোজার সমতুল্য হবে।

অপর রেওয়ায়েতে আছে, রমজানের রোজা দশ মাসের রোজার সমতুল্য আর (শাওয়ালের) ছয় রোজা দু’মাসের রোজার সমান৷ সুতরাং এ হলো এক বছরের রোজা৷

শাওয়াল মাসের ছয় রোজার উপকারিতা:

মহান শরিয়ত প্রণেতা ফরজের আগে-পরে নফল প্রবর্তন করেছেন।যেমন- ফরজ সালাতের আগে-পরের সুন্নত গুলো এবং রমজানের আগে শাবানের রোজা আর পরে শাওয়ালের রোজা৷ এই নফলসমূহ ফরজের ত্রুটি গুলোর ক্ষতি পূরণ করে৷ কারণ রোজাদার অনর্থক বাক্যালাপ, কুদৃষ্টি প্রভৃতি কাজ থেকে সম্পূর্ণ বাঁচতে পারে না যা তার রোজার পুণ্যকে কমিয়ে দেয়৷

রমজানের কাজা রোজা ও শাওয়ালের ছয় রোজা একসাথে এক নিয়তে আদায় করা: যে ব্যক্তি আরাফা দিবসে রোজা রাখল অথবা আশুরা দিবসে রোজা রাখল, এমতাবস্থায় যে তার উপর রমজানের কাজা রোজা রয়েছে, তাহলে তার রমজানের কাজা আদায় হয়ে যাবে এবং একই সাথে আরাফা দিবস বা আশুরা দিবসে রোজা রাখার ছাওয়াবও পেয়ে যাবে। এটা হল কেবল সাধারণ নফল রোজার ক্ষেত্রে যার সাথে রমজানের কোনো যুগসূত্র নেই। অবশ্য শাওয়ালের ছয় রোজার বিষয়টি ভিন্ন। শাওয়ালের ছয় রোজা রমজানের সাথে যোগসূত্রে বাঁধা।

এ কারণে রমজানের কাজা রোজা থাকলে তা আদায় করার পরই শাওয়ালের ছয় রোজা আদায় করা যাবে। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, ( যে ব্যক্তি রমজানের রোজা রাখল, অতঃপর শাওয়ালের রোজা রাখল সে যেন পুরা বছরই রোজা রাখল।) যে ব্যক্তির উপর রমজানের কাজা রোজা রয়েছে তাকে রমজানের রোজা আদায়কারী বলা হবে না যতক্ষণ না তার দায়িত্বে থাকা কাজা রোজা সে পূর্ণ করে নেবে। তাছাড়া ফরজ আদায়ের দায়িত্ব পালন নফল আদায়ের চেয়ে অধিক গুরুত্ব রাখে৷

শাওয়ালের ছয় রোজায় কি ধারাবাহিকতা বজায় রাখা জরুরি?

শাওয়ালের রোজা ধারাবাহিকভাবে একসাথে রাখা জরুরি নয়, তবে ধারাবাহিকভাবে একসাথে মাসের শুরুতেই আদায় করা মুস্তাহাব। একসাথে বা ভিন্ন-ভিন্ন উভয় ভাবেই আদায় করা যায়। যত দ্রুত রাখা যায় ততোই কল্যাণ। তবে দ্রুত আদায় না করলেও কোনো সমস্যা নেই। সে হিসেবে যদি মাসের মাঝখানে অথবা শেষে আদায় করে নেয়া যায় তবুও কোনো অসুবিধা হবে না।

রমজান ব্যতীত বছরের অন্য নফল রোজা:

রমজানের রোজা ফরজ রোজা। রমজান ব্যতীত অন্য আরো রোজা আছে যেগুলো সুন্নত। আয়েশা রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা বলেন, রমজান ব্যতীত অন্য কোন মাসে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে পূর্ণ মাস রোজা পালন করতে দেখিনি। আর শাবান মাস ব্যতীত অন্য মাসে অধিক পরিমাণে নফল রোজা পালন করতে দেখিনি। [বোখারি]

এ হাদিস দ্বারা বুঝা যায় যে, রাসূলুল্লাহ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম অধিক পরিমাণে নফল রোজা পালন করতেন। তিনি কি কি ধরনের নফল রোজা পালন করতেন তা নিম্নে আলোচনা করা হল:

  • আরাফা দিবসের রোজাঃ-

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে আরাফা দিবসের (জিলহজ্ব মাসের নবম তারিখে) রোজা সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘আরাফা দিবসের রোজা সম্পর্কে আল্লাহর কাছে আশা করি যে, তা বিগত এক বছর ও আগত এক বছরের পাপের কাফফারা হবে।’ [মুসলিম]

তবে যারা হজ্ব পালন অস্থায় থাকরে তারা এ দিন রোজা রাখবে না।

  • মহররম মাসের রোজাঃ-

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, ‘রমজান মাসের পর সবোর্ত্তম রোজা হল আল্লাহর মাস মুহাররমের রোজা। আর ফরজ নামাজের পর সবোর্ত্তম নামাজ হল রাতের নামাজ।’ [মুসলিম]

  • শাবান মাসের রোজাঃ-

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শাবান মাসে অধিক পরিমাণে নফল রোজা পালন করতেন। এর কারণ সম্পর্কে উসামা বিন যায়েদ রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু বলেন, আমি বললাম হে আল্লাহর রাসূল! নফল রোজার ব্যাপারে আমি তো শাবান মাস ব্যতীত অন্য কোন মাসে আপনাকে এত বেশি রোজা পালন করতে দেখি না। তিনি বললেন, ‘শাবান’ রজব ও রমজানের মধ্যবর্তী এমন একটি মাস যাতে মানুষ রোজা সম্পর্কে উদাসীন থাকে।

  • প্রতি মাসে তিন দিন রোজা রাখাঃ-

আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে তিনটি বিষয়ের উপদেশ দিয়েছেনঃ প্রত্যেক মাসে তিন দিন(‘আইয়ামুল বিজ’- চান্দ্র মাসের তেরো, চৌদ্দ ও পনেরো তারিখ।) রোজা রাখা, দ্বি-প্রহরের আগে দু’রাকাত নামাজ আদায় করা ও নিদ্রার আগে বিতিরের নামাজ আদায় করা। [বোখারি]

এ তিনটি রোজা আদায় করলে পূর্ণ বছর নফল রোজা আদায়ের সওয়াব লাভের কথা এসেছে। একটি নেক আমলের সওয়াব কমপক্ষে দশগুণ দেয়া হয়। তিন দিনের রোজার সওয়াব দশগুণ করলে ত্রিশ দিন হয়। যেমন আবু কাতাদা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু হতে বর্ণিত এক হাদিসে এসেছে,

প্রত্যেক মাসে তিনটি রোজা ও এক রমজানের পর পরবর্তী রমজানে রোজা পালন পূর্ণ বছর রোজা পালনের সমান। [মুসলিম]

ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন : রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মুসাফির ও মুকিম কোন অবস্থাতেই এ রোজা ত্যাগ করতেন না। [নাসায়ি]

  • সোমবার ও বৃহস্পতিবারের রোজাঃ-

সপ্তাহে দু’দিন সোমবার ও বৃহস্পতিবার রোজা পালন সুন্নত। হাদিসে এসেছে—আবু কাতাদা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে সোমবারে সিয়াম পালন সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হল। তিনি বললেন, এ দিনে আমার জন্ম হয়েছে এবং এ দিনে আমার উপর কোরআন নাজিল শুরু হয়েছে। [মুসলিম]

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন , ‘সোমবার ও বৃহস্পতিবার বান্দার আমল আল্লাহর দরবারে পেশ করা হয়। কাজেই আমি পছন্দ করি যখন আমার আমল পেশ করা হবে তখন আমি রোজা অবস্থায় থাকব।’ [মুসলিম ও তিরমিজি]

  • একদিন পর পর রোজা পালনঃ-

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন—‘আল্লাহর কাছে (নফল রোজার মধ্যে) সবচেয়ে প্রিয় রোজা হল দাউদ আলাইহিস সালাম-এর রোজা । তিনি একদিন রোজা রাখতেন ও একদিন ভঙ্গ করতেন।’ [ মুসলিম]

  • আশুরার রোজাঃ-

আবু কাতাদা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-কে আশুরার রোজা সম্পর্কে প্রশ্ন করা হল, তিনি বললেন, ‘তা বিগত এক বছরের গুনাহের কাফফারা।’ [ মুসলিম, তিরমিজি]

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘তোমরা আশুরা দিবসে রোজা পালন করো ও এ ক্ষেত্রে ইহুদিদের বিরোধিতা করো। তোমরা আশুরার একদিন পূর্বে (নবম ও দশম তারিখে এ পদ্ধতি অতি উত্তম।) অথবা একদিন পরে(দশম ও একাদশ দিবসে) রোজা পালন করবে। [আহমদ] শুধু মহররম মাসের দশম তারিখে রোজা রাখা মাকরূহ। কারণ এটা ইহুদিদের আমলের সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ ।

রোজা রাখার নিষিদ্ধ দিনগুলো:

ঈদুল ফিতরের দিন, জিলহজ্ব মাসের দশ, এগারো, বার, ও তেরো তারিখ।

 

Check Also

রোজা সংযম শিক্ষক

আরবি হিজরির নবম মাস রমজান। ঈমাম বাগাভী রহমাতুল্লাহি আলাইহি এর মতে রমজান শব্দটি আরবি রমদা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *