সাম্প্রতিক আপডেটঃ

করোনায় মৃত ব্যক্তির লাশ পোড়ানো যাবে কি?

শায়খ আল্লামা গোলাম হুসাইন (দা. বা.)

করোনা ভাইরাস বর্তমান বিশ্বে এক আতংকের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রকোপে গোটা বিশ্বই যেন মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে। এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বব্যাপী এ পর্যন্ত মারা যাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো যুক্তরাজ্যেও মৃত্যুর ঘটনা রয়েছে। দেশটির সরকারের দেওয়া সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী, যুক্তরাজ্যে শনিবার পর্যন্ত করোনায় মৃতের সংখ্যা ২৩৩ জন। আক্রান্ত হয়েছেন পাঁচ হাজার ১৮ জন। দেশটির সরকার বলছে, এভাবে লাশের সারি বাড়তে থাকলে কবরের জায়গা সংকট দেখা দেবে এবং দাফনের ক্ষেত্রে মানুষের ধর্মীয় অধিকার রক্ষা করা সম্ভব হবে না। তাই জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে করোনায় মৃতদের লাশ চীনের মত করেই পুড়িয়ে ফেলা হবে। উল্লেখ্য, ব্রিটেনে প্রায় সাত কোটি মানুষের মধ্যে প্রায় ৩০ লাখ মানুষ ইসলাম ধর্ম পালন করেন।

এদিকে বাংলাদেশে একটি টেলিভিশন চ্যানেলের টকশোর পক্ষ থেকে বাংলাদেশে অবস্থানরত করোনায় আক্রান্ত মৃতব্যক্তিদের লাশও পুড়িয়ে ফেলার দাবি জানানো হয়েছে। উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশে মোট জনগোষ্টির ৯০% মানুষ হচ্ছে ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী। অর্থাৎ প্রায় ১৫ কোটি মুসলমান বাংলাদেশে বসবাস করছে। এত বিপুল সংখ্যক মুসলমানদের মধ্যে এরকম আইন জারী করা কতটা ধর্মীয় আইনসিদ্ধ, সে বিষয়েই আমরা আজকে আপনাদের জানাবো।

ইসলামী পরিভাষায় মৃত্যু হচ্ছে জাগতিক জীবনের সমাপ্তি এবং মৃত্যু পরবর্তী জীবন তথা আখিরাত এর প্রবেশদ্বার। মৃত্যু হচ্ছে জাগতিক দেহ হতে আত্মার পৃথকীকরন এবং একই সাথে এই আত্মার জাগতিক দুনিয়া হতে আখিরাত এর উদ্দেশ্যে যাত্রা করা। সুতরাং মৃত্যু হচ্ছে চলমান জীবন প্রক্রিয়ার একটি পরিবর্তনীয় অবস্থা। মৃত্যু সম্পর্কে মহান আল্লাহ্‌ তায়ালা বলছেন-

كُلُّ نَفْسٍ ذَآىِٕقَةُ الْمَوْتِ ؕ

প্রত্যেক প্রাণীকে মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে। (আল ইমরান- ১৮৫) 

যে কোন প্রাণীই হোক তার উপর মৃত্যু একবার আসবেই। ভালো হোক খারাপ হোক তাকে মরতে হবে।

তাছাড়া প্রিয় নবী হযরত মুহম্মদ মুস্তফা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামা বলেন-

أكْثِرُواْ مِنْ ذِكْرِ هاَدِمِ اللَّذَّاتِ

‘জীবনের স্বাদ বিনষ্টকারী (মৃত্যুর) কথা তোমরা বেশি বেশি স্মরণ কর।’ (তিরমিযী, নাসাঈ, ইরউয়া- ৬৮২) তাই প্রতিটি মুসলমানের কর্তব্য হল অধিকহারে সৎআমল করা এবং মৃত্যুর জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করা।

কোনো মুসলিম মৃত্যু বরণ করলে উপস্থিত জীবিতদের উপর নিম্ন লিখিত কাজগুলো আবশ্যক হয়ে যায়। যেমনঃ মৃতব্যক্তিকে গোসল দেয়া, তার জানাযার ব্যবস্থা করা এবং তাকে মাটি দ্বারা কবরস্থ করা সহ ইত্যাদি কার্যাবলী। মুসলমান মৃত ব্যক্তিকে মাটি দ্বারা কবরস্থ করা মানে হচ্ছে তাকে তার জীবদ্দশার মত করেই সম্মানিত করার ন্যায়। আর অন্যদিকে মাটি ব্যতিত আগুন দিয়ে তার লাশ পুড়িয়ে ফেলা মানে হচ্ছে তাকে অসম্মানিত করা। প্রিয় মুসলিম ভাই ও বোনেরা ! শুধুমাত্র মৃত ব্যক্তির লাশকেই নয়, এমনকি একটি হাড় কেও মৃত্যুর পরে ভেঙ্গে ফেলাকেও একটি গর্হিত কাজ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। যেমনটা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেন,

كَسْرُ عَظْمِ الْمَيِّتِ كَكَسْرِهِ حَيًّا
মৃতের হাড় ভাঙ্গা মানে তার জীবিতাবস্থায় ভাঙ্গার ন্যায় (আবু দাউদ -৩২০৭)

তাছাড়া তিনি আরো বলেন-

كَسْرُ عَظْمِ الْمَيِّتِ كَكَسْرِ عَظْمِ الْحَيِّ فِي الْإِثْمِ
মৃতের হাড় ভাঙ্গা জীবিত ব্যক্তির হাড় ভাঙ্গার ন্যায় অপরাধ (ইবনে মাজাহ -১৬১৭ )

এই হাদিসের ব্যাখ্যায় ইমাম ত্বীবি রাহিমাহুল্লাহ বলেন,

إِشَارَة إِلَى أَنَّهُ لَا يُهَان مَيِّتًا كَمَا لَا يُهَان حَيًّا “. انتهى من “عون المعبود

যেমনিভাবে জীবিতাবস্থায় মানুষকে অসম্মান করা হারাম, অনুরূপভাবে মৃতাবস্থায়ও (আউন আল-মাউবুদ” (9/18)

তাছাড়া ইমাম আল-বাজি রাহিমাহুল্লাহ বলেন-

وقال الباجي : ” يُرِيدُ أَنَّ لَهُ مِنْ الْحُرْمَةِ فِي حَالِ مَوْتِهِ مِثْلَ مَا لَهُ مِنْهَا حَالَ حَيَاتِهِ ، وَأَنَّ كَسْرَ عِظَامِهِ فِي حَالِ مَوْتِهِ يَحْرُمُ ، كَمَا يَحْرُمُ كَسْرُهَا حَالَ حَيَاتِهِ ” . انتهى من ” المنتقى شرح الموطأ” .

মৃত ব্যক্তি ঠিক ওভাবে সম্মানের অধিকারী যেমনিভাবে সে জীবিতাবস্থায় অধিকারী ছিল। তাই তার মৃত্যুর পর তার হাড় ভাঙ্গা সেইভাবে হারাম যেমনিভাবে তার জীবিতাবস্থায়।(” আল-মুনক্তা শারহ আল-মুওয়াত্তা ‘(২/৬৩৩)

সুতরাং যদি মৃত ব্যক্তির হাড় ভাঙ্গা জীবিত ব্যক্তির হাড় ভাঙ্গার মত অপরাধ হয় তাহলে মৃত ব্যক্তির লাশ জ্বলিয়ে দেয়া মানে জীবিতাবস্থায় তাকে জ্বালিয়ে দেয়ার মত। যা অনেক বড় অপরাধ ‍ও হারাম কাজ। এই কাজ কখনো ইসলাম সমর্থিত হতে পারে না। আমরা ঠিক সেভাবেই মৃত ব্যক্তির লাশের সঙ্গে ব্যবহার করবো, যেভাবে আমাদের প্রিয় রাসূল আমাদেরকে নির্দেশনা দিয়েছেন। আমরা অবশ্যই সর্বোচ্চ সতর্কতার সাথে মুসলিম ব্যক্তির লাশকে মাটিতে কবরস্থ করবো। আধুনিকে বিজ্ঞান যেখানে মৃত ব্যক্তিকে কবরস্থ করাটাকে বিজ্ঞান ও স্বাস্থ্যসম্মত বলছে, সেখানে খোড়া যুক্তি প্রদর্শন পূর্বক মুসলমানদের লাশ পুড়িয়ে ফেলার কোন মানে হতে পারে না। আল্লাহ্‌ তায়ালা আমাদের সবাইকে মৃত্যু পর্যন্ত ইসলামের উপর পূর্ণ অটল রাখুন। আমিন

সবাই যে যেখানে আছেন, সাবধানতা সহকারে নিরাপদে থাকুন। আল্লাহ্‌ তায়ালা আমাদের সবাইকে এই মহামারি করোনা নামক গযব হতে মুক্ত রাখুন। আমিন-বিহুরমাতি সাইয়্যিদিল মুরসালিন।

 

 

 


Discover more from RoushanDAlil.com

Subscribe to get the latest posts sent to your email.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Discover more from RoushanDAlil.com

Subscribe now to keep reading and get access to the full archive.

Continue reading